রক্ষণাবেক্ষণ সেবা আউটসোর্স করবে এনবিআর

nrb

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বৈদ্যুতিন রাজস্ব ডিভাইসের (ইএফডি) জন্য বেসরকারী খাতের রক্ষণাবেক্ষণ পরিষেবা থেকে আউটসোর্স করতে চলেছে।

 

এর লক্ষ্য হল একবার খুচরা এবং পাইকারি দোকানে ইনস্টল করা মেশিনগুলির যথাযথ পর্যবেক্ষণ নিশ্চিত করা, যার ফলে পণ্য ও পরিষেবা কেনার সময় গ্রাহকদের প্রদান করা সমস্ত মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) সংগ্রহ নিশ্চিত করা।

 

রাজস্ব কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে তিনটি ভ্যাট কমিশনার — ঢাকা (পশ্চিম), ঢাকা (পূর্ব) এবং চট্টগ্রাম- এ ইএফডি স্থাপন এবং ১০ বছরের জন্য মেশিনপর্যবেক্ষণ ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সংস্থাগুলির কাছ থেকে বিড আহ্বান করেছে।

 

এনবিআরের দরপত্র বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ফার্মগুলোকে পাবলিক এজেন্সিতে মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনায় ন্যূনতম পাঁচ বছরের অভিজ্ঞতা অথবা আইসিটি সরঞ্জাম ও সফ্টওয়্যার উন্নয়নে অনুরূপ অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

 

এনবিআরচেয়ারম্যান আবু হেনা মোঃ রাহমাতুল মুনিম বলেন, “সারা দেশে লক্ষ লক্ষ মেশিন স্থাপন করে ভ্যাট সংগ্রহ করা এনবিআরের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই আমরা ইএফডি সেবা আউটসোর্স করার জন্য এই উদ্যোগ নিয়েছি।”

 

তিনি ইএফডির মাধ্যমে খুচরা বিক্রেতাদের দ্বারা গ্রাহকদের দেওয়া ক্রয় রসিদের একটি লটারি ড্রসম্বোধন করছিলেন পুরষ্কার প্রদান এবং গ্রাহকদের রসিদ চাইতে উৎসাহিত করার জন্য।

 

তিনি বলেন, এনবিআরের বর্তমান জনশক্তির কারণে এটি ভ্যাট এলাকার প্রায় এক-তৃতীয়াংশ জুড়ে যেতে পারে। তিনি বলেন, “খুচরা বিক্রেতাদের কাছ থেকে ভ্যাট যথাযথভাবে সংগ্রহ নিশ্চিত করার জন্য আমরা সমস্ত জায়গা কভার করতে পারি না।”

 

এনবিআর সদর দপ্তরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, আউটসোর্সিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে যদি ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি) মেশিন সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়া যায়, তাহলে এটি খুচরা ভ্যাট সংগ্রহে ভালো গতি আনবে।

 

২০২০ সালের আগস্ট মাসে করদাতাদের অর্থ ব্যবহার করে ডিভাইসকেনার পর মূলত ঢাকায় অবস্থিত খুচরা বিক্রয় কেন্দ্রে ভ্যাট ফাঁকি দেওয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য এনবিআর বহুল আলোচিত ইলেকট্রনিক ক্যাশ রেজিস্টার স্থাপন শুরু করার এক বছরেরও বেশি সময় পর এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

 

রাজস্ব কর্তৃপক্ষ প্রাথমিকভাবে এই উদ্যোগের অধীনে জুন ২০২১ সালের মধ্যে ১০,০০০ ইএফডি এবং সেলস ডেটা কন্ট্রোলার (এসডিসি) স্থাপনের পরিকল্পনা করেছিল।

 

এটি ধীরে ধীরে কভারেজ সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে যাতে রাজ্য ভ্যাটের প্রকৃত প্রাপ্তি পায়, যার ফাঁকি ব্যাপকভাবে রয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়, বিশেষ করে খুচরা বিক্রেতাদের ক্ষেত্রে।

এটি গ্রাহকদের ইএফডি দ্বারা জারি করা ক্রয়ের রসিদ চাইতে উৎসাহিত করার জন্য একটি লটারিও চালু করেছে।

 

এখন পর্যন্ত, এনবিআর প্রায় 3,500 ইএফডি ইনস্টল করতে পারে, যার ব্যবহার দোকান, হোটেল, রেস্তোঁরা, মিষ্টি দোকান, পোশাক, আসবাবপত্র এবং ইলেকট্রনিক্স আউটলেট এবং জুয়েলার্স সহ 25 ধরণের ব্যবসায়ের জন্য বাধ্যতামূলক।

 

ইএফডি, এসডিসি এবং ইএফডি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমআউটসোর্স করার সর্বশেষ পরিকল্পনা অনুযায়ী, এনবিআর ১৬ জানুয়ারি, ২০২২ পর্যন্ত আগ্রহী সংস্থাগুলির কাছ থেকে বিড গ্রহণ করবে, দরপত্রবিজ্ঞপ্তি অনুসারে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.